শনিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১১:২২ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
বকশীগঞ্জে ঘাতক বাস কেড়ে নিলো এক বৃদ্ধার প্রাণ শেরপুরে কমিউনিটি সেন্টার কাম ব‍ানিজ‍্যিক ভবন এর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন চিরিরবন্দরে অপরিকল্পিত ও দায়সাড়া ভাবে নির্মিত বাঁধের কারনেঃ মাস না যেতে ভেঙে গেছে প্রকাশ্যে ধুমপান বন্ধে আইন মানছে না কেউ,,বা মানা হচ্ছে না কেন? কুড়িগ্রামে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হালুয়াঘাটে পাহাড়ি ঢল আর অবিরাম বর্ষণে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত তোমার কাড়ি কইগো কন্যা ডোমারের চিলাহাটি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও এলএসডি গোডাউন যাতায়াতের প্রধান রাস্তাটির বেহাল দশা চিরিরবন্দর উপজেলায় রাশাস-এর উদ্দ্যােগে ৭০বছরের সমস্যাঃ সমাধান শেরপুরে পাহাড়ি ঢল আর অবিরাম বর্ষণে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত
durjoybangla.com_add

নবীগঞ্জ ছাত্রদলের কমিটি নিয়ে রমরমা বাণিজ্য দেশী-বিদেশী তদবীরে দিশেহারা ত্যাগীরা

রিপোর্টারঃ
  • প্রকাশের সময় | বৃহস্পতিবার, ২৭ আগস্ট, ২০২০
  • ৮০ বার পঠিত

হবিগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি ॥
হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রদলের সভাপতি এমদাদুল হক ইমরান ও রুবেল চৌধুরীকে সাধারন সম্পাদক করে কমিটি গঠন হয়েছিল ২০১৬ সালে।

তৎকালীল কেন্দ্রীয় সভাপতি রাজিব আহসান ও সাধারন সম্পাদক আকরামুল হাসান মিন্টু এই কমিটি অনুমোদন দেন। কমিটি অনুমোদন হওয়ার পর এই বছরই জেলা ছাত্রদল কয়েকটি কমিটি অনুমোদন দেয়।

তারপর দীর্ঘদিন অতিবাহিত হলেও তারা আর কোন ইউনিট কমিটি অনুমোদন দেইনি। কিন্তু ২০১৮/১৯ সালে যখন কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের নির্দেশনায় দেড় বছর প্রায় কমিটি গঠনের প্রক্রিয়া বন্ধ ছিল দলের চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া জেলে ছিলেন তৎকালীন সময় নবীগঞ্জ, চুনারুঘাট, বাহুবল, মাধবপুরের কয়েকটি কমিটি অনুমোদন দেয় জেলা কমিটি।

কেন্দ্রীয় নির্দেশ অমান্য করে কমিটি দেওয়ার কথা উঠলেও তার কোন বাস্তব প্রমান পাওয়া যায়নি নবীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রদলের কমিটি ব্যাতিত।

শত পরিশ্রম করেও সভাপতি ও সাধারন সম্পাদকের খামখেয়ালিতে পুরো জেলায় আর কোন কমিটি অনুমোদন হয়নি। বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নির্দেশে ছাত্রদলের গঠনতন্ত্রে পরিবর্তন আসে।

নতুন নিয়মে উপজেলা ও পৌর কমিটিতে প্রার্থী হতে এসএসসি পাশ বাধ্যতামুলক এবং তা ২০০৫ সালের পরে পাশ হতে হবে। কলেজ ছাত্রদলে প্রার্থী হতে হলে উক্ত প্রতিষ্ঠানের বৈধ ছাত্র হতে হবে।

এই সিদ্ধান্ত কার্যকরের ফলে সারা দেশে একযোগে দীর্ঘদিনের ত্যাগী ও পরিশ্রমী নেতারা বাদ পড়েন এসএএসি পাস না হওয়া কিংবা বিবাহিত হওয়ার কারনে।

রানিং ষ্টুডেন্ট ও এএসসি পাস ছাত্রনেতাদের সিভি সংগ্রহ শুরু হয় সারা দেশের প্রতিটি ইউনিটেই। বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সভাপতি ও সাধারন সম্পাদক সিলেট বিভাগের দায়িত্ব প্রদান করেন কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সহ সভাপতি ওমর ফারুক কাউছার, সহ সাধারন সম্পাদক আরিফ ও জামিল, এবং সহ সাংগঠনিক সম্পাদক রায়হান আহমেদের উপর এবং হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রদলের সুপার ফাইভকে দায়িত্ব দেওয়া হয় সিভি সংগ্রহ করার জন্য।

এর কিছুদিন পূর্বে নবীগঞ্জ উপজেলা, পৌর, কলেজ ছাত্রদলের সম্মেলনের সিদ্ধান্ত হয় এবং সম্মেলন শুরু হওয়ার পূর্বেই ছাত্রদলের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে তা পন্ড হয়।

এতে ক্ষিপ্ত হয়ে হবিগঞ্জ জেলার অধীনে সব কমিটিকে বিলুপ্ত ঘোষনা করা হয়। এর পর থেকেই নবীগঞ্জ উপজেলা, পৌর, ও কলেজ কমিটি নিয়ে ব্যাপক গ্রুপিং লবিং শুরু হয়। নতুন ফরম্যাটে আহবায়ক কমিটি গঠনকল্পে সিভি সংগ্রহ করার পর হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রদলের সুপার ফাইভ তা সিলেট বিভাগীয় টিমের নিকট হস্তান্তর করে।

হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রদলের সুপার ফাইভের নেতৃবৃন্দকে সিলেট বিভাগীয় টিম প্রধান আশ্বস্ত করেন জেলার সুপার ফাইভ যদি কোন কমিটিতে একমত পোষন করে তাহলে এনিয়ে তাদের কোন আপত্তি থাকবেনা।

কিন্তু জেলা ছাত্রদলের আহবায়ক কমিটির প্রস্তাব যাওয়ার পরপরই শুধুমাত্র নবীগঞ্জ উপজেলা, পৌর ও কলেজ ছাত্রদলের কমিটি নিয়ে সিলেট বিভাগীয় টিম ও কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সিনিয়র সহ সভাপতি রওনুকুল ইসলাম শ্রাবন এবং হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রদলের নেতৃবৃন্দের মধ্যে বাকবিতন্ডা শুরু হয়।

জেলায় প্রস্তাবকৃত কমিটি ছিল নবীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রদল আহবায়ক জিয়াউল ইসলাম জিয়া, সদস্য সচিব সাইফুর রহমান রাজন, নবীগঞ্জ পৌর ছাত্রদলে মোঃ আলী উদ্দিন আহবায়ক ও অর্নিবান নাগ সদস্য সচিব এবং নবীগঞ্জ সরকারি কলেজ ছাত্রদলে তৌহিদ চৌধুরী আহবায়ক ও জোমান আহমদ সদস্য সচিব। কিন্তু জেলার প্রস্তাবকৃত কমিটিকে পাশ কাটিয়ে কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সিনিয়র সহসভাপতি রওনকুল ইসলাম শ্রাবন ও সিলেট বিভাগীয় টিমের সদস্য কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সহ-সভাপতি ওমর ফারুক কাওছার সহ সাধারন সম্পাদক আরিফ এবং জামিল একপক্ষ হয়ে তাদের মনোনীত লোকদের কমিটিতে আনতে মরিয়া হয়ে উঠেন। অপরদিকে লন্ডন যুবদলের সভাপতি রহিম উদ্দিন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নাম ভাঙ্গিয়ে হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রদলের প্রস্তাবকৃতদের বাদ দিয়ে নিজের মনোনীত লোকদের আনার জন্য জোর তদবির শুরু করেন।

কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ ও জেলার সভাপতি ও সাধারন সম্পাদকের মধ্যে এ নিয়ে ব্যাপক দ্বন্ধ দেখা দিয়েছে। যার ফলে ত্যাগী ও পরিশ্রমি ছাত্রনেতাদের বাদ দিয়ে ছাত্রদলে অগ্রহনযোগ্যদের দায়িত্ব দেওয়ার খবরে প্রবাসী অধ্যুষিত এলাকা নবীগঞ্জে চলছে গ্রুপিল লবিং এবং মহড়া।

যে কোন সময় হতে পরে ভয়াবহ সংঘর্ষ। এ ব্যাপারে বিএনপির সিনিয়র একজন দায়িত্বশীল নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, নবীগঞ্জ একটি প্রবাসী অধ্যুষিত এলাকা নবীগঞ্জের কমিটি সবসময়ই হবিগঞ্জ থেকে কেন্দ্র পর্যন্ত গড়ায় এবং রমরমা টাকার বানিজ্যও হয়।

আমরা অতিতেও বানিজ্য হতে দেখেছি। জেলার প্রস্তাবকৃত কমিটিতে যারা আছে তারা আসলেই যোগ্য এবং তারা পরিক্ষিত। এখন জানলাম কেন্দ্রীয় কয়েকজন নেতা ও একজন লন্ডন প্রবাসী নেতা এই কমিটিতে হস্তক্ষেপ করছেন এবং বড় অংকের একটা বানিজ্য হয়েছে।

ত্যাগী ও পরিশ্রমী দলের নিবেদিতপ্রাণ নেতাদের এইভাবে অবৈধ ভাবে উৎকোচ গ্রহনের মাধ্যমে বাদ দিলে তা ভবিষ্যতের আন্দোলনকে বাধাগ্রস্ত করবে বলে আমি মনে করি।

নিউজটি সেয়ার করুন:
it.durjoybangla

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই জাতীয় আরো সংবাদ

আজকের নামাজের সময়সুচী

সেহরির শেষ সময় - ভোর ৪:২৭ পূর্বাহ্ণ
ইফতার শুরু - সন্ধ্যা ৬:০৬ অপরাহ্ণ
  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৪:৩২ পূর্বাহ্ণ
  • ১১:৫৭ পূর্বাহ্ণ
  • ৪:১৯ অপরাহ্ণ
  • ৬:০৬ অপরাহ্ণ
  • ৭:২০ অপরাহ্ণ
  • ৫:৪৪ পূর্বাহ্ণ

©২০১৮ সর্বস্তত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | দৈনিক লাল সবুজের ১১ নং সেক্টর অব বাংলাদেশ

কারিগরি সহযোগিতায় durjoybangla.com
themesba-lates1749691102