শনিবার, ২৪ জুলাই ২০২১, ০২:০২ অপরাহ্ন

বিজয়ের মাস গৌরবের মাস




লালমনিরহাটে পাঁচটি উপজেলায় শিলাবৃষ্টিতে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি

রিপোর্টারঃ
  • প্রকাশের সময় | বুধবার, ২৭ মে, ২০২০
  • ৩৪৫ বার পঠিত
https://www.dailylalsabujer11nosectorofbd.com

নিজস্ব প্রতিবেদক ফজলুর রহমানঃ

লালমনিরহাটের পাঁচটি উপজেলার ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া শিলাবৃষ্টিতে পাকা ধান, ভুট্টা ক্ষেতসহ বিভিন্ন ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

গতকাল মঙ্গলবার (২৬মে) রাত ৯টার দিকে এ শিলা বৃষ্টি শুরু হয়। এতে ভুট্টাসহ ফসলি জমির ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে বলে কৃষকরা জানান।

স্থানীয়রা জানান, রাত ৯টার দিকে হঠাৎ আকাশ কালো মেঘে ছেয়ে যায়। কিছুক্ষণের মধ্যে প্রচণ্ড বেগে ঝড় শুরু হলে হাজার হাজার গাছপালা ভেঙে যায়। এর পরপরেই শুরু হয় শিলাবৃষ্টি।

বড় বড় আকারের শিলার আঘাতে অনেক হালকা ও পুরাতন টিনের ঘর ফুটো হয়ে গেছে। বোরা ধান মাড়াই মৌসুমে এমন ঝড় ও শিলাবৃষ্টিতে পাকা ও আধাপাকা ধান ছিঁড়ে মাটিতে পড়েছে।

লণ্ডভণ্ড হয়েছে ধান গাছ। জেলায় ৫০ শতাংশ জমির ধান কৃষকের ঘরে পৌঁছলেও বাকি অর্ধেক মাঠেই পড়ে রয়েছে। মাঠে থাকা পাকা ধানের অভাবনীয় ক্ষতি হয়েছে।

ফলে করোনা ভাইরাস প্রাদুর্ভাবে খাদ্য সংকটের শঙ্কায় দুঃচিন্তায় পড়েছেন কৃষকরা। হাতীবান্ধা, কালীগঞ্জ, আদিতমারী ও সদর উপজেলায় শিলাবৃষ্টির পরিমাণ বেশি হওয়ায় কৃষিতে ক্ষতির পরিমাণও বেশি বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করছেন চাষিরা।

বোরোসহ নানা জাতের সবজিতে ভরে রয়েছে জেলার কৃষকদের ফসলের মাঠ। যা এ ঝড় ও শিলাবৃষ্টিতে লণ্ডভণ্ড হয়েছে।

কৃষক আমজাদ আলী বলেন, প্রায় এক বিঘা জমির বোরো ধান পাকার উপযোগী হয়েছে। যে বড় বড় পাথর পড়েছে তাতে গাছে একটা ধানও থাকার কথা নয়।

সকালে ক্ষেতে গেলে বোঝা যাবে ক্ষতির পরিমাণ। ধান ঘরে আনতে না পারলে করোনাকালে না খেয়ে মরতে হবে।

এদিকে, জেলার কালীগঞ্জ উপজেলার চলবলা ইউনিয়নে ঈদ দিন ঝড়ের তাণ্ডবে ২৫৯টি পরিবারের ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

এ সময় চলবলার নিথক গ্রামে ঘরের ওপর গাছের ডাল পড়ে দুই শিশুসহ ৮ জন আহত হয়। চলবলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান মিজু জানান, ঈদের দিন আমার ইউনিয়নে ঝড়ের তাণ্ডবে ২৫৯টি পরিবারের ঘরবাড়ি ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

এবং মঙ্গলবার রাতে টানা চার-পাঁচ মিনিট ধরে তার এলাকায় শিলাবৃষ্টি হয়েছে। পাথরের আকারও ছিল বেশ বড়। বেশকিছু পুরাতন টিনের ঘরের ছাউনি ফুটো হয়েছে।

এ এলাকায় ৫০ শতাংশ জমিতে পাকা বোরো ধান পড়ে রয়েছে। যা এ ঝড় ও শিলাবৃষ্টিতে লণ্ডভণ্ড হয়ে গেছে। লালমনিরহাট কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক শামীম আশরাফ বলেন, শিলাবৃষ্টিতে পাকা ধান ও ভুট্টার কিছুটা ক্ষতি হতে পারে।

যেসব স্থানে শিলাবৃষ্টি হয়েছে সকালে পাঁচ উপজেলার কর্মকর্তাকে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় পরিদর্শন করতে পাঠানো হবে।

লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক আবু জাফর জানান, জেলার ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া ঝড় ও শিলাবৃষ্টিতে ক্ষয়ক্ষতির বিষয়ে খোঁজখবর নিতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

নিউজটি সেয়ার করুন:
it.durjoybangla




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই জাতীয় আরো সংবাদ

আজকের নামাজের সময়সুচী

সেহরির শেষ সময় - ভোর ৩:৫৫ পূর্বাহ্ণ
ইফতার শুরু - সন্ধ্যা ৬:৫১ অপরাহ্ণ
  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৪:০০ পূর্বাহ্ণ
  • ১২:০৮ অপরাহ্ণ
  • ৪:৪৩ অপরাহ্ণ
  • ৬:৫১ অপরাহ্ণ
  • ৮:১৪ অপরাহ্ণ
  • ৫:২২ পূর্বাহ্ণ




©২০১৮ সর্বস্তত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত | দৈনিক লাল সবুজের ১১ নং সেক্টর অব বাংলাদেশ

Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesba-lates1749691102